বৃহস্পতিবার, ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২১, ০৭:৪৩ অপরাহ্ন

কনডেম সেল থেকে বাবা-মাায়ের সঙ্গে ফোনে কথা বলেছেন মিন্নি।

অনলাইন ডেক্স :
  • প্রকাশিত সময় : শুক্রবার, ২ অক্টোবর, ২০২০
  • ৯ পাঠক পড়েছে

বরগুনার রিফাত শরীফ হত্যা মামলার ফাঁসির দণ্ডাদেশ পাওয়া আয়শা সিদ্দিকা মিন্নি কারাগারের কনডেম সেল থেকে বাবা-মাায়ের সঙ্গে ফোনে কথা বলেছেন।বৃহস্পতিবার সকাল ১০টার দিকে কারাগারের টেলিফোন থেকে বাবা-মায়ের সঙ্গে কথা বলেন মিন্নি।মিন্নির বাবা মোজাম্মেল হোসেন কিশোর জানান, ‌‘সকাল ১০টার দিকে মিন্নি আমাদের সঙ্গে কথা বলেছে। সে খুব কান্নাকাটি করেছে।’ মোজাম্মেল হোসেন আরও বলেন, ‘মিন্নি মানসিকভাবে ভেঙে পড়েছে। জেলখানায় সে ভালো নেই। ষড়যন্ত্র করে আমার মেয়েকে ফাঁসানো হয়েছে। আমি এ রায়ের বিরুদ্ধে উচ্চ আদালতে আপিল করবো।’বরগুনা জেলা কারাগারের কনডেম সেলের একমাত্র নারী আসামি আয়শা সিদ্দিকা মিন্নি। ফাঁসির দণ্ডাদেশ পাওয়া অন্য পুরুষ আসামিদের পুরুষ ওয়ার্ডের কনডেম সেলে রাখা হয়েছে। জেলা কারাগারের জেল সুপার মো. আনোয়ার হোসেন বলেন, ‘কারাবিধি অনুযায়ী ছয় বন্দিকে কনডেম সেলে রাখা হয়েছে। কারাগার থেকে প্রত্যেককে দুই সেট করে পোশাক দেওয়া হয়েছে।’তিনি বলেন, ‘কনডেম সেলের বন্দিরা সেল থেকে বের হতে পারেন না। তবে মাসে একবার স্বজনদের সঙ্গে দেখা করতে পারেন। সপ্তাহে একবার তারা ফোনে স্বজনদের সঙ্গে একটি নির্দিষ্ট সময় পর্যন্ত কথা বলতে পারেন।’তিনি আরও বলেন, ‘মিন্নিকে আজ সকালে রুটি খেতে দেওয়া হয়েছে। দুপুরের খাবার ছিল ভাত, সবজি ও ডাল। রাতে গরুর মাংস, ভাত ও ডাল দেওয়া হবে।’প্রাপ্তবয়স্ক আসামিদের বিচারিক কার্যক্রম শুরুর জন্য ২০২০ সালের ১ জানুয়ারি বরগুনার জেলা ও দায়রা জজ আদালত চার্জ গঠন করেন। গত ৮ জানুয়ারি থেকে প্রাপ্তবয়স্ক ১০ আসামির বিরুদ্ধে সাক্ষ্যগ্রহণ শুরু করে গত ২৫ ফেব্রুয়ারি এ মামলার ৭৬ জন সাক্ষীর সাক্ষ্যগ্রহণ শেষ হয়। গত ১৬ সেপ্টেম্বর উভয় পক্ষের যুক্তি-তর্ক শেষ হয়। বুধবার মিন্নিসহ ৬ আসামিকে মৃত্যুদণ্ড দেন বরগুনা জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক মো. আছাদুজ্জামান।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরীর আরো খবর
Design and Developed by DONET IT
SheraWeb.Com_2580