বৃহস্পতিবার, ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২১, ১১:০৫ পূর্বাহ্ন

বায়ান্ন বাজার তিপ্পান্ন গলি

অনলাইন ডেক্স :
  • প্রকাশিত সময় : শুক্রবার, ২৯ জানুয়ারী, ২০২১
  • ১৯ পাঠক পড়েছে

দারুণ ব্যাপার! করোনার ভ্যাকসিন গ্রহণ শুরু হয়ে গেছে। এত এত মানুষের মৃত্যু। অব্যাহত সংক্রমণ। দ্বিতীয় ঢেউয়ের আশঙ্কা। এসবের মাঝেই প্রতিষেধক হিসেবে চলে এসেছে ভ্যাকসিন। এখন পর্যন্ত যত টিকা আবিষ্কৃত হয়েছে সেগুলোর মধ্যে অক্সফোর্ডের এ টিকাটি সবচেয়ে নিরাপদ ও কার্যকর বলে প্রতীয়মান হয়েছে। একই টিকা, বলতে হবে, যথেষ্ট আগেভাগেই সংগ্রহ করেছে বাংলাদেশ। বুধবার টিকাদান কর্মসূচীর আনুষ্ঠানিক উদ্বোধনও করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। দ্বিতীয় দিনে বৃহস্পতিবার ঢাকার বিভিন্ন শ্রেণী-পেশার মানুষ নিজের আগ্রহে ভ্যাকসিন গ্রহণ করেছেন। এ তালিকায় মন্ত্রী পরিষদের সদস্য, সচিব, বিশ^বিদ্যালয়ের উপাচার্যসহ বিভিন্ন অঙ্গনের বিশিষ্ট ব্যক্তিরা ছিলেন। সমাজের শিক্ষিত সচেতন অংশের প্রতিনিধিরা প্রকাশ্যে এবং আত্মবিশ^াসের সঙ্গে টিকা গ্রহণ করেছেন। কোন ধরনের পাশর্^প্রতিক্রিয়া হচ্ছে কি? বার বার জানতে চাওয়া হয়েছে তাদের কাছে। হাসিমুখে তারা জানিয়েছেন, কোন ধরনের জটিলতা তারা অনুভব করছেন না। বরং আগেভাগে নিজেকে সুরক্ষিত করার সুযোগ পেয়ে সংশ্লিষ্ট সকলকে ধন্যবাদ জানিয়েছেন। ফলে যারা টিকার পাশর্^প্রতিক্রিয়া কী হতে পারে তা নিয়ে ভেবে সময় নষ্ট করছিলেন তারাও আশ্বস্ত হয়েছেন। উদ্বুদ্ধ হয়েছেন। টিকা নেয়ার জন্য প্রস্তুত হচ্ছেন তারা। সব দেখে মনে হচ্ছে আগামী কয়েকদিনের মধ্যেই টিকা দেয়া নেয়া কার্যক্রম বিশেষ গতি লাভ করবে। কার আগে কে ভ্যাকসিন পাচ্ছে, শুরু হয়ে যেতে পারে সে হিসাব-নিকাশও। বাস্তবতা আঁচ করতে পেরে পিছু হটতে শুরু করেছে গুজব রটনাকারীরা। টিকা নিয়ে অপপ্রচার ক্রমে বন্ধ হচ্ছে। এ ক্ষেত্রে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার একটি বক্তব্য এখানে উল্লেখ করার মতো। হাসিমুখেই নিন্দুকদের কড়া জবাব দিয়েছেন তিনি। বলেছেন, ‘সমাজের এ অংশটি কিছু ভাল লাগে না’ নামক রোগে আক্রান্ত। এই রোগের কি চিকিৎসা আছে আমি জানি না। এর জন্য কোন ভ্যাকসিন পাওয়া যাবে কিনা তাও আমি জানি না। আমরা তাদেরও (অপপ্রচারে লিপ্তদের) ভ্যাকসিন দিয়ে দেব, যাতে তারাও সুরক্ষিত থাকে। কারণ তাদের যদি কিছু হয় তাহলে আমাদের সমালোচনাটা করবে কে? সমালোচনার লোকও থাকা দরকার। এর চেয়ে ভাল জবাব আর কী হতে পারে?

কামড়ে ধরেছে মাঘের শীত ॥ মাঘের শীতে, বলা হয়ে থাকে, বাঘ পালায়। কেন যুগযুগ ধরে এই কথা বলে হয়ে আসছে তার কিছুটা প্রমাণ মিলছে ঢাকাতেও। সপ্তাহজুড়েই শীতের বাড়াবাড়ি। এক মুহূর্তের জন্য ঠাণ্ডা কমছে না। মধ্যরাত থেকে ভোর পর্যন্ত কুয়াশায় ঢাকা পড়ছে শহর। শিশিরে মাটি ভিজে যাচ্ছে। দিনের বেলায় সূর্য উঠছে বটে। রোদের তীব্রতা অনেক কম। গায়ে অত লাগছে না। বিকেলে বা সন্ধ্যার দিকে বইছে ঠাণ্ডা বাতাস। শহরের উঁচু আধুনিক অট্টালিকার প্রতি কামড়ায় ঢুকে পড়ছে শীত। আর হতদরিদ্রদের কথা তো বলাই বাহুল্য। এই শীতে ফুটপাথে ফুটওভার ব্রিজে কত মানুষ যে শুয়ে আছে! শুয়ে থাকা পর্যন্তই ঘুম আর আসছে না। দুর্ভোগ বেড়ে চলেছে শুধু। অচিরেই পরিস্থিতি বদলাবে বলে মনে হচ্ছে না। আবহাওয়াবিদ ওমর ফারুক বলছেন, দেশে এখন মৌসুমের তৃতীয় শৈত্যপ্রবাহ অব্যাহত রয়েছে। এর প্রভাবেই বেড়েছে শীতের তীব্রতা। আগামী ৪ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত বৈরী আবহাওয়া বিরাজ করতে পারে। হিমেল হাওয়ার সঙ্গে আগামী কয়েকদিন মেঘলা আবহাওয়া ও কুয়াশায় শীতের অনুভূতি আরও বাড়বে। এ অবস্থায় ছিন্নমূল অসহায় মানুষগুলোর দিকে মানবিক দৃষ্টি দেয়া জরুরী হয়ে পড়েছে। কেন যেন এবার শীতবস্ত্র বিতরণের মতো চেনা কর্মসূচীগুলোও চোখে পড়ছে না। ব্যক্তি বা সংগঠন এগিয়ে আসছে না সেভাবে। কিন্তু আবারও বলি, মনে করিয়ে দিই, মানুষগুলোর পাশে দাঁড়ানোর এখনই সময়। কালবিলম্ব না করে আসুন পাশে দাঁড়াই। বাঁচাই মানুষগুলোকে।

সমাধান হলো বইমেলার ॥ শেষতক সমাধান হলো বইমেলার। ফেব্রুয়ারির পরিবর্তে এবার মার্চে শুরু হচ্ছে অমর একুশে গ্রন্থমেলা। ১৮ মার্চ ঢাকায় বৃহৎ এ মেলার উদ্বোধন করা হবে। শেষ কবে হবে তা নিয়ে এখনও সংশয় সন্দেহ রয়েছে। তাতে কী? শুরুর তারিখটা তো পাওয়া গেল। এ তারিখ ধরে এখন চলছে জোর প্রস্তুতি। কাজে নেমে পড়েছে আয়োজক বাংলা একাডেমি। কোভিড-১৯ পরিস্থিতির মধ্যে কোন্ কোন্ বিষয় প্রাধান্য দিয়ে মেলা আয়োজন করা হবে? কোথায় কোথায় আনতে হবে পরিবর্তন? দ্রুতই সব ভেবে নিয়ে কর্মপরিকল্পনা ঠিক করবে একাডেমি। সেভাবেই প্রস্তুতি চলছে। এর বাইরে বড় বড় প্রকাশকরা মোটামুটি প্রস্তুত। তবে মাঝারি ও ছোট পরিসরে বই প্রকাশ করেন যারা, তারা এখনও নানা অনিশ্চয়তায় ভুগছেন। তাদের জন্য সরকারী সহায়তার বিশেষ প্রয়োজন রয়েছে। এর ব্যবস্থা করা গেলে খুব ভাল কিছু হতে পারে। সব মিলিয়ে খুব ভাল কিছুর জন্যই অপেক্ষা করে আছেন ঢাকার বইপ্রেমীরা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরীর আরো খবর
Design and Developed by DONET IT
SheraWeb.Com_2580