সোমবার, ০১ মার্চ ২০২১, ০১:২৩ পূর্বাহ্ন

মতলব উত্তরে শ্যালকের দায়ের করা মামলায় দুলাভাই আটক

অনলাইন ডেক্স :
  • প্রকাশিত সময় : বৃহস্পতিবার, ১ অক্টোবর, ২০২০
  • ১৪ পাঠক পড়েছে

মতলব উত্তর উপজেলায় শ্যালকের দায়ের করা টাকা আত্মসাতের মামলায় দুলাভাইকে আটক করেছে পুলিশ। ২৯ সেপ্টেম্বর রাতে আসামী আবুল কালাম আজাদকে হযরত শাহজালাল আর্ন্তজাতিক বিমানবন্দর থেকে তাকে গ্রেফতার করে মতলব উত্তর থানার এসআই ইব্রাহিম ও সঙ্গীয় ফোর্স। পরে বুধবার তাকে আদালতে প্রেরণ করা হয়। এরআগে সম্প্রতি উপজেলার তফাদার পাড়া গ্রামের সিরাজুল আলী প্রধানের ছেলে প্রবাসী দ্বীন ইসলাম তার বোন হেলেনা আক্তার কল্পনা, দুলাভাই সোনারপাড়া গ্রামের মনির হোসেন প্রধানের ছেলে আবুল কালাম আজাদ, আফরোজা আক্তার মুন্নি ও সাভারের ধলপুর গ্রামের হানিফ মিয়ার ছেলে রিয়াজ মাহমুদের বিরুদ্ধে ২১ লাখ টাকা আত্মসাতের মামলা দায়ের করেন। মামলার প্রেক্ষিতে পুলিশ ২য় আসামীকে গ্রেফতার করে বিজ্ঞ আদালতে প্রেরণ করা করে। ঘটনার বিবরণে জানা গেছে, ফরাযীকান্দি ইউনিয়নের তফাদার পাড়ার সিরাজুল আলী প্রধানের ছেলে দ্বীন ইসলাম বিগত ১২ বছর পূর্বে প্রবাসে পাড়ি জমান। লিভিয়া থেকে দুই বছর পর ফিরে এসে পূণরায় সৌদি আরব যান। সেখানে থেকে ১০ বছরে ২১ লাখ টাকা পাঠিয়েছেন তার মা সূর্যবান বেগমের একাউন্টে। তার মায়ের চেকবই চুরি করে স্বাক্ষর জাল করার মাধ্যমে তার আপন বোন হেলেনা আক্তার কল্পনা ওই একাউন্ট থেকে ২১ লাখ টাকা হাতিয়ে নিয়ে ঢাকার সাভারে নিজের ও স্বামী আবুল কালাম আজাদের নামে বাড়ি করেছেন। শুধু তাই নয় তাদের দলিলপত্র দিয়েও একটি এনজিও থেকে ১০ লাখ টাকা লোন এবং স্থানীয় আরো কয়েকজনের কাছ থেকে লাখ লাখ টাকা নিয়ে উধাও হয়ে যায় হেলেনা আক্তার কল্পনাসহ তার স্বামী। দ্বীন ইসলাম দেশে ফিরে জমি কিনবেন, ঘর করবেন এবং বিয়ে করার প্রস্তুতি নিয়ে সম্প্রতি দেশে ফিরেন। দেশে এসে তার মাকে নিয়ে টাকা তুলতে সোনালী ব্যাংক ফরাযীকান্দি শাখায় গিয়ে দেখেন একাউন্টে মাত্র ৭ হাজার টাকা আছে। এ ঘটনার খবর ছড়িয়ে পড়লে স্থানীয় এলাকায় তোলপাড় সৃষ্টি হয়। মতলব উত্তর থানার ওসি মো. নাসির উদ্দিন মৃধা বলেন, মায়ের একাউন্টে থাকা ভাইয়ের টাকা বোন-দুলাভাই কর্তৃক আত্মসাতের অভিযোগে মামলা হয়েছে। এরপ্রেক্ষিতে আমরা আসামীকে গ্রেফতার করে আদালতে পাঠিয়েছি। বাকী আসামীদেরও গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে। এদিকে আটককৃত আবুল কালাম আজাদের মা ও ভাই বলেন, সে দ্বীন ইসলামের টাকা নেয়নি, আত্মসাৎও করেনি। আজাদ দীর্ঘদিন প্রবাসে ছিল।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরীর আরো খবর
Design and Developed by DONET IT
SheraWeb.Com_2580