শুক্রবার, ২২ জানুয়ারী ২০২১, ০৬:১৯ পূর্বাহ্ন

সাধুহাটি ইউনিয়নে এক হিন্দু পরিবারের কাছে জমি বিক্রয় করে রেজিষ্ট্রি না করে উল্টো তার নামে মামলা

অনলাইন ডেক্স :
  • প্রকাশিত সময় : বুধবার, ২৫ নভেম্বর, ২০২০
  • ১ পাঠক পড়েছে

ঝিনাইদহের সদর উপজেলার সাধুহাটি ইউনিয়নের মামুদপুর গ্রামের এক হিন্দু পরিপারের কাছে ১৪ বছর আগে জমি বিক্রয় করেন একই গ্রামের নজরুল মুহুরি। জমি রেজিষ্ট্রি করে দেব দেব করে দীর্ঘ দিন পার হলেও এখন সেই জমি নজরুর মুহুরি তার স্ত্রীর নামে লিখে দিয়ে উল্ট অরুবিন্দু হালদারের নামে উচ্ছদের মামলা করাই পরিবারটি অসহায় হয়ে পড়েছে। যার কারনে গ্রামের সাধারন মানুষ নজরুলের বিরুদ্ধে ফুসে উঠেছে। অরুবিন্দুর স্ত্রী কল্পনা হালদার জানান ১৪/১৫ বছর আগে এনজিওর লোন তুলে ,গায়ের গহনা বিক্রয় করে এই ভিটে কেনার টাকা পরিশোধ করি এবং সেখানে ঘর বেধে বসবাস করছি। এখন জমি রেজিষ্ট্রি না করে দিয়ে উচ্ছদ মামলা করেছে নজরুর মুহুরী। ,আমরা কোথায় যাবো,কোথায় থাকবো? তাই প্রশাসনের কাছে বিচার প্রার্থনা করছি। অরুবিন্দু হালদার জানান , নজরুল ইসলামের কাছ থেকে ১৪/১৫ বছর আগে ৫০ হাজার টাকা দিয়ে ৫শতক জমি ক্রয় করি, কিন্তু জমির কাগজ পত্র ঠিক করে জমি রেজিষ্ট্রি করে দেবে এই কথা বলে দীর্ঘ দিন আমার ঘুরাতে থাকে। জমির নাম খারিজ ও নামপত্তন করার টাকা আমি দিয়ে জমির নাম খারিজ ও নাম পত্তন করে আনি আমি নিজে । এখন দেখছি তার স্ত্রীর নামে জমি দিয়ে দিয়েছে এবং আদালাতে আমার নামে উচ্ছদ মামলা করেছে,আমি এখন কেথাই যাবো তাই জেলা প্রশাসনের কাছে ,এর সু- বিচার আশা করছি। নজরুরের বড় ভাই আমিনুর মোল্লা জানান অরুবিন্দুর হালদার কাছ থেকে টাকা নিয়েছে এবং জমি বিক্রয় করেছে এটা আমি জানি, এর সঠিক বিচার হওয়া উচিত।মোঃ নজরুল ইসলাম মুহুরির ছোট বোন বেলি জানান তার ভাই ,অরুবিন্দুর হালদার কাছে জমি বিক্রয় করেছেন এটা সবাই জানে সে অন্যয় করছে আমার ভাইয়ের এই অন্যায়ের বিচার হওয়ার দরকার। এদিকে মামুদপুর ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের সভাপতি সহিদুল ইসলাম জানান ১ মাস আগেও নজরুর ইসলামের সাথে কথা হয় সে জমি বিক্রয়এর কথা স্বীকার করেন এবং জমি রেজিষ্ট্রি করে দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দেন, কিন্তু এখন শুনছি হালদাদের নামে উচ্ছেদ মামলা করেছে, এটা অন্যায় এর বিচার হওয়া উচিত। বি এন পির নেতা সুয়াদ আলী জানান আমি নিজ হাতে করে ৫০ হাজার টাকা গুনে দিয়েছি নজরুলের কাছে,। আর এখন অরুবিন্দুর জমি দিচ্ছেনা এটা চরম অন্যায় ,আমরা চাই একটা গরিব মানুষ তার মাথা গোজার জাইগা যেন কেউ অন্যাই ভাবে কেড়ে না নেই। এদিকে সাধুহাটি ইউনিয়ন চেয়ারম্যান কাজি নাজির উদ্দীন জানান বিষয়টি আমি নজরুলের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন জমি সে বিক্রয় করেন নি ,তবে গ্রামের মানুষের কাছে গিয়ে শুনেছি যারা হাতে করে টাকা গুনে দিয়েছিলো তারা বলেছে ৫০ হাজার টাকা দিয়েছেন ৫শতক জমির দাম।আমি ব্যক্তিগত ভাবে, এই অণ্যায়ের বিচার চাই।
এদিকে নজরুলের বাড়ি গিয়ে তাকে না পেয়ে মুঠো ফোনে কথা হয় তিনি বলেন আমি তার কাছে জমি বিক্রয় করেনি, টাকাও নেইনি মৌখিকভাবে থাকতে দিয়েছি,গ্রামের মানুষ মিথ্যা বলছে। তবে এলাকা বাসি বলেন,গরিব অসহায় অরুবিন্দুর হালদার তার জমি ফিরে পাক,এবং নজরুলের মিথ্যচারের বিচার হোক।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরীর আরো খবর
Design and Developed by DONET IT
SheraWeb.Com_2580