বৃহস্পতিবার, ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২১, ১১:২৩ পূর্বাহ্ন

১৭ অক্টোবর প্রেসক্লাবে গণফোরাম দুই অংশের পৃথক কর্মসূচী

অনলাইন ডেক্স :
  • প্রকাশিত সময় : শনিবার, ৩ অক্টোবর, ২০২০
  • ১২ পাঠক পড়েছে

২৭ বছর একসঙ্গে পথচলার পর বিভক্ত গণফোরামের দু’পক্ষের মধ্যে দেখা দিয়েছে মৃদু উত্তেজনা। একই দিনে জাতীয় প্রেসক্লাবে পৃথক পৃথক রাজনৈতিক কর্মসূচীকে কেন্দ্র করে এই উত্তেজনার সৃষ্টি। যদিও উভয় পক্ষ থেকে বলা হচ্ছে, তারা শান্তিতে বিশ^াসী। শেষ পর্যন্ত কোন রকম কোন রকম অঘটন ছাড়[াই কর্মসূচী শেষ হবে এমন বিশ^াস্ব উভয় পক্ষে নেতাদের।

জানা গেছে, ড. কামাল হোসেন ও রেজা কিবরিয়ার নেতৃত্বাধীন মূল গণফোরাম আগামী ১৭ অক্টোবর প্রেসক্লাবের ভেতরে কেন্দ্রীয় কমিটির সভা ডেকেছেন। সর্বশেষ দলটির সম্মেলনের পর এটাই বড় পরিসরে কামাল হোসেন পক্ষের প্রথম বৈঠক। অপর দিকে সাবেক সাধারণ সম্পাদক মোস্তফা মহসিন মন্টু, সাবেক নির্বাহী সভাপতি সুব্রত চৌধুরী ও অধ্যাপক আবু সাইয়িদের নেতৃত্বাধীন অংশ প্রেসক্লাবের বাইরে মানববন্ধন কর্মসূচীর ঘোষণা দিয়েছেন। সম্প্রতি নির্বাহী কমিটির সভা ডেকে রেজা কিবরিয়াকে বহিস্কারের পর আগামী ২৬ডিসেম্বর মন্টু-সুব্রত পক্ষ দলের কাউন্সিল ঘোষণা করেছে।

গণফোরামের সাবেক সাংগঠনিক সম্পদক লতিফুল বারী হামিম বলেন, শনিবার সকাল ১০টা থেকে ১২টা পর্যন্ত মতিঝিলের দলীয় কার্যালয়ে সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটির প্রথম বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। বৈঠকে সিদ্ধান্ত হয়েছে আগামী ১৭ অক্টোবর সকাল ১০টায় জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে ধর্ষণ ও সরকারের অগণতান্ত্রিক কার্যক্রমের বিরুদ্ধে মানববন্ধন হবে।

এছাড়া বৈঠকে আগামী ২৬ ডিসেম্বর আহুত দলের জাতীয় কাউন্সিল সফল করার লক্ষ্যে প্রস্তুতি পরিষদের ১৪টি উপ-কমিটি গঠন করা হয়েছে। এছাড়া সারাদেশে বন্যার্তদের মাঝে ত্রাণ তৎপরতার জন্য সরকারের কাছে আবেদন জানানো হয়েছে। বৈঠক শেষে দলীয় কার্যালয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনেও এসব তথ্য সাংবাদিকদের কাছে তুলে ধরেন সুব্রত চৌধুরী সহ অন্যরা।

জানতে চাইলে ড. কামাল হোসেনের নেতৃত্বাধীন মূল অংশের সাবেক যুগ্ম-সম্পাদক ও বর্তমান আহ্বায়ক কমিটির যুগ্ম-আহবায়ক মোশতাক আহমদ বলেন, আমরা ১৭ অক্টোবর প্রেসক্লাবে কেন্দ্রীয় আহ্বায়ক কমিটির সভা ডেকেছি। তারা মানববন্ধন করবে তাতে আমাদের কিছু আসে যায় না।

তিনি বলেন, গণফোরামের বর্তমান কেন্দ্রীয় আহ্বায়ক কমিটির কেউ তাদের সঙ্গে নেই। যারা গত কমিটিতে ছিলেন কিন্তু নতুন আহ্বায়ক কমিটিতে নেই তারাই এসব করছেন। ড. কামাল হোসেন সভায় থাকবেন কি না জানতে চাইলে মোশতাক আহমদ বলেন, অবশ্যই থাকবেন। তার বাসায় বসেই এই সভা ডাকার সিদ্ধান্ত হয়েছে।

গণফোরামের কেন্দ্রীয় কার্যালয় এখন বিদ্রোহী অংশের দখলে এ প্রসঙ্গে মোশতাক আহমদ বলেন, আমরা এ মাসেই নতুন অফিস নিয়েছি। পুরানা পল্টনে আজাদ টাওয়ারে। এ প্রসঙ্গে লতিফুল বারি হামিম বলেন, একজন যুদ্ধাপরাধীর পক্ষ নিয়ে যিনি আদালতে লড়েছিলেন সেই আইনজীবীর অফিসে রাজনৈতিক কার্যালয় করছেন কামাল হোসেন। এটা মেনে নেয়া যায় না।

গণফোরামের সাধারণ সম্পাদক ড. রেজা কিবরিয়া বলেন, আমাদের কেন্দ্রীয় একটাই আহ্বায়ক কমিটি, যার সদস্য ৭০ জন। এর বাইরে জেলার কয়েকজন সিনিয়র নেতা বৈঠকে থাকবেন। অপর অংশের মানববন্ধন ডাকা প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ভালো, মন্টু ভাইদের স্টাইলে তারা কী করতে চায় সেটা বুঝতেই পারছেন। তারা আমাদের অনেক ভয় পাচ্ছে। ভয় পেলে মানুষ এরকম করে। ইটস ওকে। কোনো সমস্যা নেই। তিনি বলেন, মানববন্ধন ভালো জিনিস, তারা করুক। এটা নিয়ে আগে থেকে দুশ্চিন্তা করার কিছু নই।

আমাদের কর্মসূচীতে ড. কামাল হোসেন হয়তো ভার্চ্যুয়ালি থাকবেন। তিনি বলেন, কামাল স্যারকে নেয়ার পক্ষপাতি আমি না। হয়তো স্যারকে ওখানে আনলে আমাদের রাজনৈতিকভাবে লাভ হতো, কিন্তু আমি আনতে চাচ্ছি না। তিনি ভারচুয়ালি বক্তব্য রাখবেন হয়ত।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরীর আরো খবর
Design and Developed by DONET IT
SheraWeb.Com_2580